আজকের দিন-তারিখ

  • রবিবার ( রাত ১০:১৫ )
  • ২২শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং
  • ২৩শে মুহাররম, ১৪৪১ হিজরী
  • ৭ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ ( শরৎকাল )

Archive Calendar

সেপ্টেম্বর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহস্পতি শুক্র শনি রবি
« জুলাই    
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০  
কক্সবাজার

কক্সবাজার মেডিকেল কলেজে দুর্নীতির তদন্ত নেমেছে দুদক

37views

কক্সবাজার ডেস্ক : কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের আসবাবপত্র ক্রয়ে ২০ কোটি ৮৬ লাখ টাকার ভুয়া ফার্নিচার বিল আটকে দেয়ার পর অনিয়ম-দুর্নীতি তদন্তে কাজ শুরু করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন। গতকাল সোমবার (৪ মার্চ) সকাল ১০টায় দুর্নীতি দমন কমিশনের চট্টগ্রাম বিভাগীয় উপ পরিচালক মো. মাহবুব আলমের নেতৃত্বে একটি দল কক্সবাজার সরকারি মেডিকেল কলেজে গিয়ে তদন্ত কার্যক্রমে অংশ নেন। এর আগে বিশাল অঙ্কের এই অনিয়ম-দুর্নীতির বিষয়ে তদন্ত করে প্রতিবেদন দেয় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়।
সংশ্লিষ্ট সূত্র, মন্ত্রণালয়ের নথি ও সংসদীয় কমিটির কার্যপত্র থেকে জানা যায়, ২০১৬ সালের জুলাইয়ে কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের তৎকালীন অধ্যক্ষ রেজাউল করিম অনেকটা একক ক্ষমতায় এস এল ট্রেডার্সকে আসবাব সরবরাহের কার্যাদেশ দেন। কী পরিমাণ আসবাব লাগবে, সে বিষয়ে তিনি দরপত্র নির্বাচন কমিটির কাছ থেকে কোনো চাহিদাপত্র নেননি। যে কারণে ঠিকাদার ৩১ ধরণের ২ হাজার ৪২২টি আসবাব সরবরাহ করার সুযোগ পেয়েছেন, যার অর্ধেকই কলেজের প্রয়োজন নেই।
স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সাবেক সচিব সিরাজুল ইসলাম ২০১৭ সালের মাঝামাঝি সময়ে মেডিকেল কলেজ পরিদর্শনে গিয়ে দেখতে পান, বিভিন্ন কক্ষ ও হলে প্রয়োজনীয় আসবাব বসানোর পর অবশিষ্ট আসবাব একাধিক কক্ষে স্তূপ করে ফেলে রাখা হয়েছে। অনিয়মের আঁচ পেয়ে তিনি ২০১৭ সালের ১৩ আগস্ট অতিরিক্ত সচিব আনোয়ার হোসেন হাওলাদারকে প্রধান করে দুই সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেন।
তদন্ত কমিটি তদন্ত শেষ করে ২০১৭ সালের ৩০ আগস্ট প্রতিবেদন জমা দেয়। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দরপত্রে ৬২ ধরনের আসবাব সরবরাহের কথা থাকলেও তদন্তে পাওয়া গেছে ৩১ ধরণের। সরবরাহ করা আসবাব খুবই নিম্নমানের এবং এসব আসবাব দেশের নামী কোনো প্রতিষ্ঠান থেকে কেনা হয়নি। তা ছাড়া প্রয়োজনের অনেক বেশি আসবাব সরবরাহ করা হয়েছে। যে কারণে এসব আসবাব একাধিক কক্ষে স্তূপ করে ফেলে রাখা হয়েছে।
আরও বলা হয়েছে, আসবাব কেনার জন্য দরপত্র আহ্বান করা হলেও বাস্তবে কোনো প্রতিযোগিতা হয়নি। দরপত্র নির্ধারণ কমিটি মালামালের চাহিদা নির্ধারণ না করায় ঠিকদার চাহিদার অতিরিক্ত মালামাল সরবরাহ করেছে। এর দায় সাবেক অধ্যক্ষ রেজাউল করিমের ওপর বর্তায়। সাবেক অধ্যক্ষ রেজাউল করিম এককভাবে যে চাহিদাপত্র তৈরি করেছেন, সেখানে কয়েকটি ক্ষেত্রে রিভলবিং চেয়ার সরবরাহের কথা উল্লেখ থাকলেও সরবরাহ করা হয়েছে ফিক্সড চেয়ার। শ্রেণিকক্ষে ছাত্রদের বসার জন্য ৩৫০টি ফিক্সড চেয়ারের দাম ৬২ লাখ ৩০ হাজার। যার অর্থ প্রতিটি চেয়ারের দাম ১৭ হাজার ৮০০ করে। তদন্ত কমিটি বলেছে, চেয়ারে ব্যবহার করা বোর্ড অত্যন্ত নিম্নমানের। হলকক্ষের জন্য সরবরাহ করা দুই শতাধিক চেয়ারের প্রতিটির দাম ৩৫ হাজার থেকে ৪৫ হাজার টাকা করে। চেয়ারগুলো বিভিন্ন রঙের হওয়ায় খুবই অসুন্দর দেখায়। যাচ্ছেতাই মানের ২০টি সোফার প্রতিটির দাম ৯৫ হাজার ৫০০ করে। পরিদর্শনে কিছু সোফার হাতল নড়বড়ে এবং কয়েকটির হাতল প্রায় বিচ্ছিন্ন অবস্থায় দেখা গেছে। ৩০০টি সিঙ্গেল (একজনের উপযোগী) খাটের প্রতিটির দাম ৬২ হাজার ৫০০ টাকা করে। প্রতিটি সোফার দাম ৯৫ হাজার ৫০০ টাকা। টি-টেবিলের দাম ৩০ হাজার ৫০০ টাকা করে।
প্রতিবেদনে আরও দেখা যায়, ২০টি ডাবল (দুজনের উপযোগী) খাটের প্রতিটির দাম ৮৭ হাজার ৫০০ টাকা করে। ২৫টি সেক্রেটারিয়েট টেবিলের দাম ২৩ লাখ হাজার ৫০০ টাকা। অর্থাৎ প্রতিটির দাম ৯৩ হাজার ৫০০ টাকা করে। ৬০টি সাধারণ টেবিলের প্রতিটির দাম ৪১ হাজার ২৫০ টাকা করে। কর্মকর্তাদের ব্যবহারের জন্য ৪৫টি টেবিলের প্রতিটির দাম ৯৮ হাজার ৪৭৫ টাকা করে। ২০টি টি-টেবিলের প্রতিটির দাম ৩০ হাজার ৫০০ টাকা করে। ২০টি ডাইনিং টেবিলের প্রতিটির দাম ৯৫ হাজার ৫০০ টাকা করে।
তদন্ত কমিটির মতে, কেনাকাটার সবকিছু অধ্যক্ষ রেজাউল করিম নিজ বিবেচনায় করেছেন। যে কারণে অনিয়মের সব দায় তাঁর ওপর বর্তায়। এর ওপর ভিত্তি করে স্বাস্থ্যশিক্ষা ও পরিবারকল্যাণ বিভাগ ১০ জানুয়ারি রেজাউল করিমের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে চিঠি পাঠায়।
জানতে চাইলে সাবেক অধ্যক্ষ রেজাউল করিম বলেন, ‘আমি কক্সবাজারের মানুষ। তাই সুযোগ পেয়ে আমি এই কলেজের জন্য সর্বোচ্চটাই করার চেষ্টা করেছি। কারণ ২০০৮ সালে কলেজ প্রতিষ্ঠার পর থেকে নয় বছরে কিছুই হয়নি। আমি না করলে কিছুই হতো না। বর্তমানে যে ছাত্রসংখ্যা আছে, ভবিষ্যতে তা আরও বাড়বে। সুতরাং বাড়তি আসবাব কেনাটা দোষের কিছু হয়নি।’
সূত্র আরও জানায়, ২০১৭ সালের মাঝামাঝি সময়ে অবসরে যাওয়ার আগে রেজাউল করিম এস এল ট্রেডার্সের কাছ থেকে যাবতীয় মালামাল বুঝে নেন। এরপর থেকেই মিঞা ছাদুল্লাহ বিল আদায়ের জন্য নতুন অধ্যক্ষ সুভাস চন্দ্র সাহাকে চাপ দিতে থাকেন এবং বিলের জন্য তিনি অধ্যক্ষকে একটি জিও দেখান। এর ওপর ভিত্তি করে ১২ ডিসেম্বর সুভাষ চন্দ্র সাহা ২০ কোটি ৮৫ লাখ ৮৪ হাজার টাকার বিল অনুমোদন ও বরাদ্দ দেওয়ার জন্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে চিঠি লেখেন।
অধিদপ্তরের পরিচালক অধ্যাপক আবদুর রশিদ বরাদ্দ দেওয়ার জন্য স্বাস্থ্যশিক্ষা ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিবের কাছে চিঠি লেখেন।
জবাবে ১৬ জানুয়ারি মন্ত্রণালয়ের উপসচিব ফয়সাল শাহ অধিদপ্তরকে জানান, ঠিকাদারের বিল পরিশোধের জন্য প্রয়োজনীয় টাকা চলতি অর্থবছরে বরাদ্দ নেই। রাজস্ব খাতের টাকা থেকে বিল পরিশোধ করা সম্ভব হলেও অর্থ মন্ত্রণালয় তাতে সম্মতি দেয়নি।
মন্ত্রণালয় আরও জানায়, এস এল ট্রেডার্সের বিল পরিশোধের জন্য কোনো জিও জারি হয়নি। ঠিকাদার অধ্যক্ষ সুভাষকে যে জিও দেখিয়েছেন তা ভুয়া।
এ ব্যাপারে কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. সুভাষ চন্দ্র সাহা বলেন, আমি যোগদান করার আগে থেকে এখানে কিছু বিষয় নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ ছিল, সে সব বিষয়ে দুদক তদন্ত করছে আমাদের পক্ষ থেকে উনাদের সার্বিক ভাবে সহযোগিতা করা হচ্ছে।
দুদকের তদন্তটিমের সাথে ছিলেন কক্সবাজার গণপূর্ত বিভাগের উপ বিভাগীয় প্রকৌশলী এস এম জাহিদ ও মো. আবদুর রব মাসুদ। দুদকের সহকারী পরিচালক রতন কুমার দাশসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা। তবে তদন্ত কাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত কোন কিছু বলা যাচ্ছে না জানিয়ে দুদকের উপ পরিচালক মাহবুব আলম বলেন, আমরা প্রাথমিকভাবে তদন্ত কাজ শুরু করেছি। এখন ফার্নিচারের বাস্তব অবস্থা, গুণগত মান এবং আনুষঙ্গিক বিষয়ে দেখা হচ্ছে। এছাড়া তদন্ত আরো অধিকতর গ্রহণযোগ্যতা বা সঠিকভাবে নির্নয়ের জন্য কক্সবাজার গণপূর্ত অধিদপ্তরের ২ জন উপ বিভাগীয় প্রকৌশলীও রাখা হয়েছে। যদি কাজ একদিনে শেষ করা না যায় তাহলে আরো সময় নিয়ে তদন্ত কাজ চলবে।