আজকের দিন-তারিখ

  • শনিবার ( রাত ২:৫১ )
  • ৪ঠা এপ্রিল, ২০২০ ইং
  • ১০ই শাবান, ১৪৪১ হিজরী
  • ২১শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ ( বসন্তকাল )

Archive Calendar

 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০  
জাতীয়রাজনীতি

জাতির পিতাকে স্বীকৃতি দিচ্ছে বিএনপি

234views

অবশেষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে স্বীকৃতি দিচ্ছে বিএনপি। আগামী ১১জুন থেকে অনুষ্ঠেয় সংসদ অধিবেশনে বিএনপির নির্বাচিত কয়েকজন সংসদ সদস্য প্রথমবারের মত বঙ্গবন্ধুকে ‘জাতির পিতা’ হিসেবে সম্বোধন করবেন বলে জানা গেছে। তবে, কৌশলগত কারণে এই পাঁচ সাংসদের কেউই এ ব্যাপারে মুখ খুলছেন না। বিএনপির একাধিক সূত্র জানিয়েছে, লন্ডন থেকে তারেক জিয়ার নির্দেশেই বিএনপির ৫জন সংসদ সদস্য এরকম অবস্থান নেবেন। এর মাধ্যমে রাজনীতিতে একটি সুস্থ এবং স্বাভাবিক পরিস্থিতি সৃষ্টির উদ্যোগ শুরু হবে।

বিএনপির রাজনীতি প্রতিষ্ঠাই হয়েছিল জাতির পিতাকে অস্বীকৃতি এবং ৭৫ এর খুনীদের
সঙ্গে আঁতাতের মাধ্যমে। স্বাধীনতা বিরোধী এবং ৭৫ এর খুনীদের নিয়েই বিএনপির আত্মপ্রকাশ। আওয়ামী বিরোধী ভোট একাট্টা করতে বিএনপি জাতির পিতাকে অস্বীকার করে, ইতিহাস বিকৃতি করে জিয়াউর রহমান জিয়াউর রহমানকে স্বাধীনতার ঘোষক বানায়। ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবসে বেগম জিয়া বানোয়াট জন্মদিন পালন শুরু করে। এরফলে বাংলাদেশের রাজনীতিতে শুরু হয় বিভক্তির যুগের।

২০০৮ সালের ডিসেম্বরের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ নিরঙ্কুশ বিজয় পায়। ওই নির্বাচনের প্রচারেই আওয়ামী লীগ প্রথমবারের যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের অঙ্গীকার করে। এরফলে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন জোট পায় তিন চতুর্থাংশ আসন। এখান থেকে আওয়ামী লীগ একে একে জাতির পিতার হত্যার বিচারের রায় কার্যকর করে। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার শুরু করে। বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার শুরু করে। বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার, জাতির পিতার স্বীকৃতির ব্যাপারে ঐক্যবদ্ধ হয়। এসব ব্যাপারে একটি জাতীয় ঐক্যমত প্রতিষ্ঠিত হয়।

এ সময়ই মুক্তিযুদ্ধের চেতনার আলোকে রাজনীতির আওয়াজ ওঠে। বিভিন্ন মহল থেকে বলা হয়, রাজনীতিতে নীতি আদর্শের মত পার্থক্য থাকতেই পারে, কিন্তু মৌলিক জাতীয় প্রশ্নে ঐক্যমত থাকতে হবে। মুক্তিযুদ্ধ, বাংলাদেশ, জাতির পিতা ইত্যাদি মৌলিক বিষয়ে বিভাজন করা যাবে না।

বেগম খালেদা জিয়া গত বছরের ৭ ফেব্রুয়ারি এতিমখানা দুর্নীতির মামলায় দণ্ডিত হন।
এরপর থেকেই বিএনপি আন্তর্জাতিক অঙ্গনে প্রতিহিংসার রাজনীহিতর বদলে রাজনীতির
দাবী করে আসছিলো। বিভিন্ন রাষ্ট্রদূতদের কাছে , বাংলাদেশে রাজনীতিতে গণতান্ত্রিক
সংস্কৃতি চালুর দাবী করেছিল। কিন্তু বিএনপি এখন বুঝতে পারেনি যে, এটা তাদের জন্য
হীতে বিপরীত হবে। কূটনৈতিক মহল এনিয়ে নিজেরা পর্যালোচনা করে, বিএনপি- আওয়ামীলীগ এবং সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের সঙ্গে কথা বলে। এসব আলাপ-আলোচনা থেকে কূটনীতিকদের কাছে একটি বিষয় স্পষ্ট হয়, তা হলো বাংলাদেশের রাজনীহিততে বিরোধের সূত্রপাত ৭৫ এর ১৫ আগস্ট। তাই রাজনৈতিক বিরোধ নিষ্পত্তি এবং সকল দলের সহ অবস্থানের নীতির চর্চার জন্য এ বিষয়ে ঐক্যমত প্রয়োজন। সেই প্রেক্ষিতেই সহ অবস্থানের ১০ দফা সুপারিশ দেয়া হয়।

(দেখুন ১০ দফা সমঝোতা প্রস্তাব যেমন… আ. লীগ-বিএনপির ১০ দফা সমঝোতা প্রস্তাব )

সেই সুপারিশের বাস্তবায়নের প্রথম পদক্ষেপ দৃশ্যমান হবে এবার সংসদে। বিএনপির কোন সংসদ সদস্য জাতীয় সংসদে প্রথমবারের মতো জাতির পিতাকে স্বীকৃতি দেবে।

১ Comment

Comments are closed.