আজকের দিন-তারিখ

  • শনিবার ( সকাল ৯:৪৫ )
  • ২০শে জুলাই, ২০১৯ ইং
  • ১৭ই জিলক্বদ, ১৪৪০ হিজরী
  • ৫ই শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ ( বর্ষাকাল )

Archive Calendar

জুলাই ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহস্পতি শুক্র শনি রবি
« জুন    
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  
ক্রীড়াঙ্গন

জিতল কুমিল্লা দেখল দেশ

ক্রীড়াঙ্গন ডেস্ক :‘জিতবে ঢাকা দেখবে দেশ’ সুন্দর এই স্লোগানটি ঢাকা ডায়নামাইটসের। কিন্তু স্লোগানটিকে মিথ্যা প্রমাণ করে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের ষষ্ঠ আসরের ফাইনালে ঢাকাকে হারিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো চ্যাম্পিয়ন হলো কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। সমর্থকরা হয়তো এখন মহাউল্লাসে গাইছেন ‘জিতল কুমিল্লা দেখল দেশ’, হয়তো ঢাকার সমর্থকদের সঙ্গে ঠাট্টাও করছেন এ স্লোগান দিয়ে।আজ শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টায় মিরপুরের শেরো বাংরা স্টেডিয়ামে ঢাকা ডায়নামাইটসের বিপক্ষে টসে হেরে আগে ব্যাট করে তিন উইকেট হারিয়ে ১৯৯ রান তোলে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। কুমিল্লার দেওয়া ২০০ রানের টার্গেটে খেলতে নেমে ১৮২ রানে থমকে যায় সাকিবদের ইনিংস। ১৭ রানে পরাজয় মেনে নিয়ে মাঠ ছাড়ে ঢাকা।বিপিএলের ষষ্ঠ আসরে এসে প্রথমবারের মতো ফাইনাল খেলেছেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের বাঁহাতি ওপেনার তামিম ইকবাল। নিজের প্রথম ফাইনালে এসেই দেখা পেলেন টি-টোয়েন্টিতে নিজের প্রথম সেঞ্চুরি। পেয়েছেন চ্যম্পিয়ন হওয়ার স্বাদও। মাত্র ৫০ বলে সাতটি ছয় ও আটটি চারের মারে তামিম তিন অঙ্কের ম্যাজিক ফিগারের দেখা পান। শেষ পর্যন্ত ১৪১ রানে অপরাজিত থেকে মাঠ ছাড়েন এ ব্যাটসম্যান।ওপেনিংয়ে ব্যর্থ হয়েছেন প্রথম কোয়ালিফায়ার ম্যাচে দুর্দান্ত খেলা কুমিল্লার এভিন লুইস। আনামুল হক বিজয় ৩০ বলে ২৪ রানের ইনিংস খেলে সাকিবের বলে ভুল আউটের শিকার হয়ে সাজঘরে ফিরে যান। ইমরুল কায়েস অপরাজিত ছিলেন ১৭ রানে।ঢাকার হয়ে সর্বোচ্চ চার ওভারে ৪৮ রান দেন রুবেল হোসেন। লুইসকে সাজঘরে পাঠিয়ে বিধ্বংসী বোলিংয়ের বার্তা দিলেও পরে বেদম মার খান। এ ছাড়া সাকিব আল হাসান চার ওভারে ৪৫ রান দিয়ে এক উইকেট শিকার করেন। এই উইকেটের মাধ্যমে এবারের বিপিএলে সর্বোচ্চ ২৩ উইকেট শিকারির খাতায় নাম লেখান ঢাকার অধিনায়ক।জবাবে খেলতে নেমে রানের খাতা খোলার আগেই উইকেটের খাতা খোলে ঢাকা ডায়নামাইটস। নারাইন দলীয় এবং নিজের রানের খাতা খোলার আগেই ফিরে যান সাজঘরে। নারাইন ফিরে যাওয়ার শোককে শক্তিতে পরিণত করে বিস্ফোরক ব্যাটিং শুরু করেন রনি তালুকদার। তাকে দেখে অপর প্রান্তে থাকা থারাঙ্গাও মারতে থাকেন চার-ছয়। দুইজনের দুর্দান্ত বোলিংয়ে পাওয়ার প্লেতে ৭১ রান করে ফেলে ঢাকা। কিন্তু তবুও শেষ পর্যন্ত জয়ের দেখা পায়নি সাবেক চ্যাম্পিয়নরা।মাত্র ৩৮ বলে সর্বোচ্চ ৬৬ রান আসে রনি তালুকদারের ব্যাট থেকে। থারাঙ্গা আউট হন ৪৮ রান করে। ব্যর্থ ছিলেন অধিনায়ক সাকিব নিজেই। মাত্র ৩ রান আসে তার ব্যাট থেকে। হাসেনি দুই ক্যারিবীয় রাসেল-পোলার্ডের ব্যাট। দুইজনের ব্যাট থেকে আসে মাত্র ১৭ রান।কুমিল্লার ম্যাচ জয়ের নায়ক পাকিস্তানি পেসার অহাব রিয়াজ। অন্য সব বোলারের উপর চওড়া হলেও তার বলের কাছে এসে যেন থমকে গেছে ঢাকা। তিনি চার ওভারে মাত্র ২৮ রান দিয়ে দিয়ে তিন উইকেট নেন। পেরেরা দুটি ও সাইফুদ্দিন নেন একটি উইকেট।ছয় আসরের মধ্যে পাঁচ ফাইনাল খেলেছে ঢাকা। চ্যাম্পিয়ন হয় তিনবার। অন্যদিকে কুমিল্লা ছয় আসরের মধ্যে ফাইনাল খেলেছে দুইবার। আর দুইবারই চ্যাম্পিয়ন হওয়ার স্বাদ পায় ফ্র্যাঞ্চাইজিটি।

১ Comment

Comments are closed.