আজকের দিন-তারিখ

  • রবিবার ( রাত ১০:৪০ )
  • ২২শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং
  • ২৩শে মুহাররম, ১৪৪১ হিজরী
  • ৭ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ ( শরৎকাল )

Archive Calendar

সেপ্টেম্বর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহস্পতি শুক্র শনি রবি
« জুলাই    
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০  
জাতীয়

তিন লাখ কোটি টাকার বিনিয়োগ আহ্বান

27views

কক্সবাজার ডেস্ক : জনশক্তি, যোগাযোগ, জ্বালানি, জনশক্তি, বিদ্যুৎসহ বাংলাদেশের বিভিন্ন খাতে ন্যূনতম ৩৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বিনিয়োগে সম্মত হয়েছে সৌদি আরব। বাংলাদেশি অর্থে যা প্রায় তিন লাখ কোটি টাকা। তবে কত সময়ের মধ্যে, কীভাবে ও কোন কোন প্রকল্পে এই বিপুল পরিমাণ অর্থ ব্যয় করা হবে, তা নির্ধারণ হয়নি। দুপক্ষের আলোচনা সাপেক্ষে পরবর্তী সময়ে এসব চূড়ান্ত হবে।

গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর হোটেল ইন্টার কন্টিনেন্টালে সৌদি আরবের অর্থ ও পরিকল্পনামন্ত্রী মোহাম্মেদ বিন মাজিদ আল তোয়াইজরি এবং বাণিজ্য ও বিনিয়োগমন্ত্রী মজিদ বিন আবদুল্লাহ আল কাসাবির নেতৃত্বে ঢাকা সফররত সৌদি আরবের প্রতিনিধি দলের সঙ্গে গতকাল বৈঠক করে অর্থমন্ত্রী আহম মোস্তফা কামালের নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিনিধি দল। এতে দুদেশের মধ্যে ব্যবসা-বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বৃদ্ধির লক্ষে সৌদি পরিকল্পনামন্ত্রীকে প্রধান করে সৌদি-বাংলাদেশ জয়েন্ট ওয়ার্কিং কমিটি অব ইনভেস্টমেন্ট নামে একটি কমিটি গঠনে একমত হয় ঢাকা ও রিয়াদ।

এ ছাড়া দ্রুততম সময়ের মধ্যে একটি জয়েন্ট ইকোনমিক কাউন্সিলও গঠনের সিদ্ধান্ত হয়। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশে বিনিয়োগের ইতিবাচক দিক তুলে ধরে মূল প্রস্তাবনা উপস্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বেসরকারি খাত উন্নয়নবিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান। এর পর প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে তার উপস্থিতিতে ব্যবসা-বিনিয়োগ সংক্রান্ত চারটি সমঝোতা ও দুটি স্মারক চুক্তি স্বাক্ষরিত হয় দুদেশের মধ্যে। দুদেশের বৈঠকে পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশনে বাংলাদেশে বিনিয়োগের ১০টি ইতিবাচক দিক তুলে ধরেন সালমান এফ রহমান। এ সময় তিনি বাংলাদেশের ভৌগলিক তাৎপর্য তুলে ধরে বলেন, বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার ভূ-কৌশলগত প্রবেশদ্বার, বিশেষ করে ভারত ও চীনকে সংযুক্ত করার ক্ষেত্রে। এটি আঞ্চলিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ বাজারকে সংযুক্ত করবে।

এ আঞ্চলিক বাজারের মধ্যে ভুটান, নেপাল ও মিয়ানমারও রয়েছে। এই প্রবেশদ্বারের মাধ্যমে ২ দশমিক ৯ বিলিয়ন ভোক্তা বা গ্রাহকের কাছে সেবা পৌঁছানো যাবে। এ ক্ষেত্রে প্রতিবছর ৮ দশমিক ৫৩ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলারের বেশি ব্যয় করে থাকে। অগ্রাধিকার বাজারে প্রবেশের বিষয়ে উল্লেখ করে সালমান এফ রহমান বলেন, বাংলাদেশ ৩৮টি দেশ থেকে জিএসপি সুবিধা পাচ্ছে। এর মধ্যে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নভুক্ত ২৮টি দেশ ছাড়াও রয়েছে অস্ট্রেলিয়া, বেলারুশ, কানাডা, লিখটেনস্টাইন, জাপান, নিউজিল্যান্ড, নরওয়ে, রাশিয়া, সুইজারল্যান্ড ও তুরস্ক। একই সঙ্গে বাংলাদেশ ইউরোপিয়ান ইউনিয়নে ডেনিম পণ্যের প্রথম রপ্তানিকারক। তৈরি পোশাক রপ্তানিকারক। পাট উৎপাদন এবং রপ্তানিতে বাংলাদেশ প্রথম। চামড়াজাত পণ্য উৎপাদন এবং রপ্তানিতে বাংলাদেশ ৮ম।

এ ছাড়া সাইকেল রপ্তানিতে বাংলাদেশ ৮ম। অবকাঠামোগত সহযোগিতা প্রসঙ্গে সালমান এফ রহমান উল্লেখ করেন, দেশে বর্তমানে ৬৬টি অর্থনৈতিক জোন রয়েছে। আগামী ১৫ বছরের মধ্যে যা ১০০টিতে উন্নীত হবে। পদ্মা ব্রিজ দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সঙ্গে উত্তর এবং পূর্বাঞ্চলকে সংযুক্ত করবে। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ হচ্ছে বাংলাদেশের প্রথম যোগাযোগ এবং সম্প্রচার স্যাটেলাইট। একই সঙ্গে জ্বালানি বৈচিত্র্য হিসেবে এলএনজি, নিউক্লিয়ার পাওয়ার, পারমাণবিক শক্তি, সৌরশক্তি, বায়ু ও এলপিজি ইত্যাদি। বর্তমানে দেশে ২০ হাজার ১৩৩ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদিত হচ্ছে। ২০২১ সালে এই সংখ্যা দাঁড়াবে ২৪ হাজার, ২০৩০ সালে হবে ৩০ হাজার।

এ সময় সৌদি আরবের বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বিষয়কমন্ত্রী মাজীদ বিন আবদুল্লাহ আল কাসাবির নেতৃত্বে ৩৪টি ব্যবসা ও বিনিয়োগ সংক্রান্ত প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল, পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) বিষয়ক মুখ্য সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদ, বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিডা) নির্বাহী চেয়ারম্যান কাজী আমিনুল ইসলামসহ সংশ্লিষ্টরা। সংলাপে আলাদা বক্তব্যে উঠে আসে, সৌদি আরবের বিনিয়োগকারীদের জন্য একটি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলে দুই হাজার একর জমি বরাদ্দ করা হয়েছে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে দু’দেশের ব্যবসায়ীরা একাধিক প্লানারি সেশনে অংশ নেন।