আজকের দিন-তারিখ

  • মঙ্গলবার ( সকাল ৭:১৪ )
  • ২৩শে জুলাই, ২০১৯ ইং
  • ২০শে জিলক্বদ, ১৪৪০ হিজরী
  • ৮ই শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ ( বর্ষাকাল )

Archive Calendar

জুলাই ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহস্পতি শুক্র শনি রবি
« জুন    
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  
সকল সংবাদ

নির্জন দ্বীপে একাকী নারীর ১৮ বছর!

5views

একটি দ্বীপে একাকী এক নারী! তাও দুই-এক বছর নয়, টানা ১৮ বছর! কোনো কল্পকাহিনি নয়, একেবারেই বাস্তব ঘটনা। আর এই ঘটনা অবলম্বনে পরবর্তী কালে উপন্যাসও লেখা হয়েছে। ১৫০ বছরেরও আগের এই ঘটনা আজও  চমকে দেয় পৃথিবীর মানুষকে। সেই নারীর নাম জুয়ানা মারিয়া। তবে এটা তার আসল নাম নয়। সভ্য সমাজে এই নাম তিনি পেয়েছিলেন। তাঁর আসল নাম কী ছিল,তা জানা যায়নি।কে এই জুয়ানা মারিয়া? তার গল্প শুনে মনে পড়ে যেতে পারে বিখ্যাত রবিনসন ক্রুসোর কথা। নির্জন দ্বীপে তার অভিযানের গল্প সারা বিশ্বের প্রিয়। তবে ওই কাহিনীও আসলে লেখা হয়েছিল এক পথ হারানো নাবিকের জীবন অবলম্বনে। যেমন মারিয়া জুয়ানার জীবন অবলম্বনে লেখা উপন্যাসের নাম ‘আইল্যান্ড অফ দ্য ব্লু ডলফিনস’।

ক্যালিফোর্নিয়ার একটি নির্জন দ্বীপ সান নিকোলাস। সেখানে বাস করত নিকোলেনো উপজাতি সম্প্রদায়। ১০ হাজার বছর ধরে ওই দ্বীপে তারা বাস করলেও ক্রমে তাদের সংখ্যা কমতে থাকে। শেষে ১৮৩৫ সালে দ্বীপের অবশিষ্ট জনা কুড়ি অধিবাসীকে একটি নৌকায় তুলে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু এর পরেই দেখা যায়, দুজন নেই। এই দুজনের একজন মারিয়া। অন্যজন তার দুবছরের ছেলে। এমনও শোনা যায়, ছেলে হারিয়ে যাওয়ার কারণেই তাকে খুঁজতে নৌকা থেকে নেমে পড়েন মারিয়া।ঠিক কী হয়েছিল তা আর জানা যায়নি। কেননা, ১৮ বছর পরে ১৮৫৩ সালে যখন সন্ধান মেলে মারিয়ার, ততদিনে তার সভ্যতার সঙ্গে সব যোগসূত্র কেটে গেছিল। তবে আকারে ইঙ্গিতে তিনি বুঝিয়েছিলেন, তার ছেলে বুনো কুকুরের শিকারে পরিণত হলেও তিনি একাই ওই দ্বীপে বেঁচেছিলেন প্রবল সংগ্রাম করে। তিমির হাড় দিয়ে তৈরি করেছিলেন তার বাড়ি। সিল মাছ, বুনো পাখি মেরে ক্ষুণ্ণিবৃত্তি করতে হয়েছে তাকে। সভ্য দুনিয়ায় ফিরে সাত মাসের বেশি বাঁচেননি মারিয়া। সমস্ত রহস্য নিয়ে তিনি চলে যান পরপারে।