1. arif.arman@gmail.com : Daily Coxsbazar : Daily Coxsbazar
  2. dailycoxsbazar@gmail.com : ডেইলি কক্সবাজার :
  3. litonsaikat@gmail.com : ডেইলি কক্সবাজার :
  4. shakil.cox@gmail.com : ডেইলি কক্সবাজার :
  5. info@dailycoxsbazar.com : ডেইলি কক্সবাজার : Daily ডেইলি কক্সবাজার
ম্যারাডোনার চেয়েও বড় ফুটবলার ছিল বাংলাদেশে - Daily Cox's Bazar News
রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৫:১৮ পূর্বাহ্ন
নোটিশ ::
ডেইলি কক্সবাজারে আপনার স্বাগতম। প্রতি মূহুর্তের খবর পেতে আমাদের সাথে থাকুন।
সংবাদ শিরোনাম ::
কট্টরপন্থী ইসলামী দল হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের জন্য চ্যালেঞ্জ: এসএডিএফ কক্সবাজারের আট তরুণ তরুণীকে ‘অদম্য তারূণ্য’ সম্মাননা জানাবে ঢাকাস্থ কক্সবাজার সমিতি Job opportunity বিশ্বের সবচেয়ে বড় আয়না, নাকি স্বপ্নের দেশ! আল-আকসা মসজিদে ইহুদিদের প্রার্থনা বন্ধের আহ্বান আরব লীগের পেকুয়ায় পুলিশের অভিযানে ৮০ হাজার টাকার জাল নোটসহ গ্রেফতার-১ পেকুয়ায় অস্ত্র নিয়ে ফেসবুকে ভাইরাল : অস্ত্রসহ আটক শীর্ষ সন্ত্রাসী লিটন টেকনাফে একটি পোপা মাছের দাম হাঁকাচ্ছেন সাড়ে ৭ লাখ টাকা ! কক্সবাজারের টেকনাফে র‍্যাবের অভিযানে ইয়াবাসহ আটক-১ নিউ ইয়র্কে মেয়র কার্যালয়ে শহীদ মিনার নির্মাণ নিয়ে কনসাল জেনারেলের আলোচনা

ম্যারাডোনার চেয়েও বড় ফুটবলার ছিল বাংলাদেশে

ডেইলি কক্সবাজার ডেস্ক ::
  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ২ ফেব্রুয়ারী, ২০১৬
  • ৪১৩ বার পড়া হয়েছে

2016_02_02_13_57_03_7Nc9MGpvM6CtB2R5Ilg7BEM6n8d9Jf_originalদিনাজপুর : ফুটবল জাদুকর সামাদকে বলা হয় কিংবদন্তির মহানায়ক। তিনি জাদুকর উপাধি পেয়েছিলেন জাদুবিদ্যা জানার জন্য নয়, ফুটবল খেলার অপূর্ব দক্ষতা এবং উন্নত কৌশল প্রদর্শনের জন্যই তার এ উপাধি। উপমহাদেশের প্রখ্যাত কিংবদন্তি ফুটবলার সামাদ ম্যারাডোনার চেয়েও বড় জাদুকর ছিলেন বলে অনেকেই মনে করেন। আজ ২ ফেব্রুয়ারি তার ৫২তম মৃত্যুবার্ষিকী।

১৯১৫ সাল থেকে ১৯৩৮ সাল এই ২৩ বছর ছিল সামাদের খেলোয়াড় জীবন। তিনি ছিলেন একজন রেল কর্মচারী। সে সময় ইবিআর নামে যে রেলওয়ে ফুটবল টিম ছিল সামাদ তাতে সক্রিয়ভাবে জড়িত ছিলেন। এ কারণে ইবিআরএ সামাদ নামে পরিচিত ছিলেন তিনি। সামাদের ২৩ বছর খেলার জীবনে এমন সব বিস্ময়কর ঘটনা ঘটেছে যা ক্রীড়া জগতে উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত হয়ে আছে। দেশে এবং দেশের বাইরেও তার অভিনব খেলা দেখে মানুষ হতবাক হয়েছে। তার জাদুকরি খেলার কৌশল দেখে দর্শকরা উল্লাসে ফেটে পড়েছে। করতালি দিয়ে অভিনন্দন জানিয়েছে।

একবার খেলার আগে মাঠের চারদিকে পায়চারি করে এসে সামাদ সেখানকার কমিটির কাছে অভিযোগ করলেন যে, এ মাঠ আন্তর্জাতিক মাপ হিসেবে ছোট, তাই এ মাঠে আমাদের টিম খেলতে পারে না। পরে মাঠ মাপার পর তার অভিযোগ সত্য বলে প্রমাণিত হয়েছে।

আরেকবার মাঠের মধ্যস্থল থেকে বল নিয়ে সব খেলোয়াড়কে বোকা বানিয়ে বল ড্রিবলিং করে নিক্ষেপ করলেন গোলে। বল গোলে প্রবেশ না করে পোস্টের কয়েক ইঞ্চি উপর দিয়ে বাইরে চলে গেলে রেফারি বাঁশি বাজিয়ে বলকে আউট ঘোষণা করলেন। কিন্তু সামাদ তা গোল হয়েছে বলে চ্যালেঞ্জ করে বসেন। তিনি বলেন, ‘আমার শটে নিশ্চিত গোল হয়েছে। সামাদের শটের মেজারমেন্ট কোনোদিন ভুল হয় নাই। গোলপোস্ট উচ্চতায় ছোট আছে।’ পরে তার চ্যালেঞ্জ অনুযায়ী মেপে দেখা গেল সত্যিই গোলপোস্ট কয়েক ইঞ্চি ছোট আছে।

তার খেলোয়াড় জীবনের এ রকম বহু ঘটনা আজও দেশ-বিদেশের খেলার জগতে অগণিত সামাদ ভক্তের মুখে মুখে শোনা যায়। জাদুকর সামাদ ১৯৪৭ সালে দেশভাগের সময় তৎকালীন পূর্বপাকিস্তানে চলে আসেন ও বসবাস করতে শুরু করেন দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুরে। রেলওয়ে জংশনের জন্য খ্যাত বাংলাদেশ রেলওয়ের পশ্চিমাঞ্চলীয় জোনের বৃহৎ রেলওয়ে জংশন পার্বতীপুরে ফুটবল জাদুকর সামাদ ছিলেন।

যদিও রেলওয়ের কোনো প্লাটফর্ম ইনস্পেক্টর পদ নেই তবুও জাদুকর সামাদের জন্য রেল কর্তৃপক্ষ এই পদ সৃষ্টি করেছিলেন। পরে তাকে বাংলাদেশ রেলওয়ে পার্বতীপুর জংশনে প্লাটফর্ম ইনস্পেক্টর হিসেবে নিযুক্ত করা হয়। তিনি রেলওয়ে সাহেবপাড়া কলোনিতে টি-১৪৭ নম্বর বাসায় থাকতেন এবং মৃত্যুর আগ মুহূর্ত পর্যন্ত তিনি এই বাসাতেই ছিলেন।

ভারতবর্ষের বিহার এলাকার পুর্নিয়ায় ফুটবল জাদুকর সামাদের জন্ম। তার পুরো নাম সৈয়দ আব্দুস সামাদ। তিনি ১৯৬৪ সালে ২ ফেব্রুয়ারি পার্বতীপুরে মৃত্যুবরণ করেন। পার্বতীপুর শহরের ইসলামপুর কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।

আজ আমরা বিদেশি খেলোয়াড়দের নিয়ে গর্ব করে তাদের ছবি পোশাকে ছাপিয়ে ঘুরে বেড়াই। শোনা যায়, ফুটবলার জাদুকর সামাদের সোনার মূর্তি ব্রিটিশ মিউজিয়ামে রক্ষিত আছে। আমরা বিশ্বনন্দিত ফুটবল জাদুকর সামাদকে কতটুকু মূল্যায়ন করছি? পার্বতীপুরে রেলওয়ের নির্মিত একটি মিলনায়তন আছে। যা ফুটবল জাদুকর সামাদের নামে রাখা হয়েছে।

পার্বতীপুর শহরের ইসলামপুর কবরস্থানে সমাহিত করার দীর্ঘ ২৫ বছর অবহেলিত অরক্ষিত থাকার পর ১৯৮৯ সালে ৫২ হাজার টাকা খরচ করে নির্মাণ করা হয় স্মৃতিসৌধ। এখনো সেখানে রয়েছে সামাদ রেলওয়ে মিলনায়তন যা ১৯৪৯ সালে ফুটবল জাদুকর সামাদের নামে উৎসর্গ করা হয়েছিল। রয়েছে তার বসবাসকৃত রেলের বাসাসহ বেশকিছু স্মৃতিচিহ্ন। কিন্তু প্রয়োজনীয় সংস্কার ও রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে তার স্মৃতিচিহ্নগুলো হারিয়ে যেতে বসেছে।

যদি সরকার স্কুলের পাঠ্যপুস্তকে ফুটবল জাদুকর সামাদের ছবিসহ জীবনী তুলে ধরা হয় তাহলে হয়তো ভবিষ্যতে তার নাম চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে। নতুন প্রজন্মের কাছে তিনি বেঁচে থাকবেন যুগ যুগ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 Dailycoxsbazar
Theme Customized BY Media Text Communications