1. arif.arman@gmail.com : Daily Coxsbazar : Daily Coxsbazar
  2. dailycoxsbazar@gmail.com : ডেইলি কক্সবাজার :
  3. litonsaikat@gmail.com : ডেইলি কক্সবাজার :
  4. shakil.cox@gmail.com : ডেইলি কক্সবাজার :
  5. info@dailycoxsbazar.com : ডেইলি কক্সবাজার : Daily ডেইলি কক্সবাজার
সমুদ্রের গভীরে লুকোনো অনুপম ঘণ্টা - Daily Cox's Bazar News
শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:০০ পূর্বাহ্ন
নোটিশ ::
ডেইলি কক্সবাজারে আপনার স্বাগতম। প্রতি মূহুর্তের খবর পেতে আমাদের সাথে থাকুন।
সংবাদ শিরোনাম ::
কট্টরপন্থী ইসলামী দল হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের জন্য চ্যালেঞ্জ: এসএডিএফ কক্সবাজারের আট তরুণ তরুণীকে ‘অদম্য তারূণ্য’ সম্মাননা জানাবে ঢাকাস্থ কক্সবাজার সমিতি Job opportunity বিশ্বের সবচেয়ে বড় আয়না, নাকি স্বপ্নের দেশ! আল-আকসা মসজিদে ইহুদিদের প্রার্থনা বন্ধের আহ্বান আরব লীগের পেকুয়ায় পুলিশের অভিযানে ৮০ হাজার টাকার জাল নোটসহ গ্রেফতার-১ পেকুয়ায় অস্ত্র নিয়ে ফেসবুকে ভাইরাল : অস্ত্রসহ আটক শীর্ষ সন্ত্রাসী লিটন টেকনাফে একটি পোপা মাছের দাম হাঁকাচ্ছেন সাড়ে ৭ লাখ টাকা ! কক্সবাজারের টেকনাফে র‍্যাবের অভিযানে ইয়াবাসহ আটক-১ নিউ ইয়র্কে মেয়র কার্যালয়ে শহীদ মিনার নির্মাণ নিয়ে কনসাল জেনারেলের আলোচনা

সমুদ্রের গভীরে লুকোনো অনুপম ঘণ্টা

ডেইলি কক্সবাজার ডেস্ক ::
  • আপডেট সময় বুধবার, ২৭ জুলাই, ২০১৬
  • ২৫৭ বার পড়া হয়েছে

সমুদ্রের গভীরে লুকোনো অনুপম ঘণ্টাকৃতির স্ট্যালেকটাইটস। যেনো সাগররাজের দরবারে ধ্বনি ছাড়াই বেজে যাচ্ছে গুপ্ত দানবীয় ঘণ্টা। স্ট্যালেকটাইটস আসলে কী? শিলার সঙ্গে ঝুলন্ত কাঠামো স্ট্যালেকটাইটস। জলের প্রস্রবণে ক্যালসিয়াম সল্ট জমা হয়ে গঠিত হয় এগুলো।

ছবির গোপন ঘণ্টাগুলোর আস্তানা মেক্সিকোর ইউকাটানের পানির নিচে। ছবি তুলেছেন আন্ডারওয়াটার ফটোগ্রাফার রাইনো স্কোরবানি। স্থানীয় সিঙ্কহোলের গভীরে এই স্ট্যালেকটাইটসের ভাণ্ডার। এসব সিঙ্কহোলগুলো সেনোটা নামেও পরিচিত।

ঘণ্টাগুলোকে নরকের ঘণ্টা, হাতির পা, সাওয়ার হেড, ভেঁপু নামে চিহ্নিত করেন অনেকে। স্ট্যালেকটাইটস আকারে ক্ষুদ্র থেকে শুরু করে এক মানুষ সমান লম্বা হয়।

স্কোরবানি বলেন, এগুলো স্বতন্ত্র। এগুলোর সুন্দর ছবি পেতে অনেকবার ডুব দিয়েছি আমি।

ভুতুড়ে ঘণ্টার এ অ‍াবিষ্কারটি হয়েছে মেক্সিকোর ইউকাটান পেনিনসুলাতে। এটি নিচু ও অপেক্ষাকৃত সমতল স্থান।

এ অঞ্চলে প্রাকৃতিকভাবে তৈরি হয়েছে গর্ত বা সিঙ্কহোল। এগুলোর মধ্যে কিছু কিছু মায়া সভ্যতার জনগোষ্ঠী বিশুদ্ধ জলের উৎস হিসেবে ব্যবহার করতো। একসময় তারা এসব জলের উৎসকে কেন্দ্র করেই নগরী গড়ে তোলে। সেনোটা সাধারণত নিম্ন অক্ষাংশের অঞ্চলগুলোতে দেখা যায়। মেক্সিকোতে প্রায় ছয় হাজার সেনোটা রয়েছে। যার অর্ধেকেরও কম অনুসন্ধান করা গেছে।

সেনোটার ভেতর স্ট্যালেকটাইটসগুলো তৈরি হয়েছে সিলিং থেকে গড়ানোর বৃষ্টির জলের খনিজ জমা হয়ে। সাধারণত এগুলো এক ইঞ্চি পরিমাণ তৈরি হতে একশো বছর লাগে। আর ছবির এই বিশালাকার স্ট্যালেকটাইটস তৈরি হয়েছে কমপক্ষে এক হাজার বছরের বেশি সময় নিয়ে।

তবে এগুলোর আকৃতি ঘণ্টার মতো কেন? অনেকে বলেন, বেল শেপ হওয়ার কারণ- গুহার মধ্যে বয়ে চলা বাতাস। কিন্তু এ প্রাকৃতিক ঘণ্টার আকৃতির আসল কারণ এখনও কেবল রহস্য।

তথ্যসূত্র: ইন্টারনেট

শেয়ার করুন

Leave a Reply

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 Dailycoxsbazar
Theme Customized BY Media Text Communications