আজকের দিন-তারিখ

  • শনিবার ( রাত ১০:০২ )
  • ৭ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং
  • ১০ই রবিউস-সানি, ১৪৪১ হিজরী
  • ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ ( হেমন্তকাল )

Archive Calendar

ডিসেম্বর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহস্পতি শুক্র শনি রবি
« জুলাই    
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১  
জাতীয়

৯০ শতাংশ স্কুলের ১০০ মিটারের মধ্যে তামাকপণ্য বিক্রি

264views

চট্টগ্রাম, কক্সবাজার ও রাঙামাটির ৯০ শতাংশ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও খেলার মাঠের ১০০ মিটারের মধ্যে তামাকপণ্যের বিক্রয় কেন্দ্র আছে। গড়ে ৬টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও খেলার মাঠে এ সীমার মধ্যে তামাকপণ্য বিক্রয় করা হচ্ছে। ৭৭ শতাংশ বিক্রয় কেন্দ্রে শিশুদের চোখের সমান্তরালে (১ মিটার) তামাকপণ্য প্রদর্শিত হচ্ছে এবং ৩৩ শতাংশ বিক্রয় কেন্দ্রে চকলেট, মিষ্টি বা খেলনার পাশে তামাকপণ্য দেখা গেছে। 

ক্যাম্পেইন ফর টোব্যাকো ফ্রি কিডসের (সিটিএফকে) সহযোগিতায়, ইয়ং পাওয়ার ইন সোশ্যাল অ্যাকশন (ইপসা) ‘বিগ টোব্যাকো টিনি টার্গেট : বাংলাদেশ’ শীর্ষক জরিপে এমন চিত্র উঠে এসেছে। গতকাল চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের এস রহমান হলে সংবাদ সম্মেলন করে জরিপের ফলাফল উপস্থাপন করেন ইপসার উপ-পরিচালক নাসিম বানু। জরিপের ফলাফলের ওপর আলোচনা করেন কবি সাংবাদিক ওমর কায়সার, সিটিএফকের ব্র্যান্ড ম্যানেজার আবদুস সালাম মিয়া, এন্টি টোব্যাকো মিডিয়া এলায়েন্সের আহ্বায়ক আলমগীর সবুজ, ইপসার প্রোগ্রাম ম্যানেজার ওমর শাহেদ হিরু প্রমুখ। জরিফের ফলাফলে দেখা যায়, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও খেলার মাঠের ১০০ মিটারের মধ্যে ৯৬ শতাংশ বিক্রয় কেন্দ্রে তামাক পণ্যের বিজ্ঞাপন প্রদর্শিত হচ্ছে। ৮৪ শতাংশ বিক্রয় কেন্দ্রে তামাকপণ্যের স্টিকার, ডেমো প্যাকেট, ফেস্টুন, ফ্লায়ার প্রদর্শনের মাধ্যমে বিজ্ঞাপন দেওয়া হয়েছে। ১৪ শতাংশ বিজ্ঞাপন হচ্ছে পোস্টারে, ১ শতাংশ হচ্ছে ছাতায় তামাক কোম্পানির ব্র্যান্ডিং এবং ১ শতাংশ বিলবোর্ডের মাধ্যমে। নাসিম বানু বলেন, ‘৯৮ শতাংশ বিক্রয় কেন্দ্রে একক শলাকা সিগারেট বিক্রি করায় শিশুরা টিফিনের টাকা বাঁচিয়ে ধূমপান করছে।’