সংবাদ শিরোনাম

অনাস্থা ভোটের মুখোমুখি বিজেপি জোট

ভারতে ২০১৪ সালে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে সরকার গঠনের পর প্রথমবারের মতো অনাস্থা ভোটের মুখোমুখি হয়েছে বিজেপি নেতৃত্বাধীন জোট।

শুক্রবার সন্ধ্যায় ভারতের পার্লামেন্ট লোকসভায় এ ভোটাভুটি হওয়ার কথা।

এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, লোকসভায় চলমান বর্ষা অধিবেশনের শুরুতেই গৃহীত হয় তেলেগু দেশম পার্টির আনা অনাস্থা প্রস্তাব। কংগ্রেসসহ বিভিন্ন বিরোধী দল এই প্রস্তাবে সমর্থন দেয়। শুক্রবার সকাল থেকে এ প্রস্তাব নিয়ে লোকসভায় আলোচনা চলছে। আলোচনা শেষে হবে ভোটাভুটি। এর মধ্য দিয়ে গত ১৫ বছরের মধ্যে প্রথমবারের মতো ভারতের কোনো সরকার অনাস্থা ভোটের মুখোমুখি হচ্ছে।

এদিন লোকসভায় অনাস্থা প্রস্তাবের আলোচনায় অংশ নিয়ে টিডিপি সাংসদ জয়দেব গাল্লা বলেন, ‘মোদি সরকারের জন্যই অন্ধ্রে সমস্যা তৈরি হয়েছে। অন্ধ্রের সঙ্গে বিশ্বাসভঙ্গ করেছে মোদি সরকার। ঋণের বোঝা চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে, যার ফলে অন্ধ্রের মানুষ কষ্টে আছে। অন্ধ্রকে ভাগ করে তেলঙ্গানা হওয়ায় বিপুল পরিমাণ আর্থিক ক্ষতি হয়েছে। কেন্দ্রীয় সরকার তার ভূমিকা যথাযথ পালন করেনি। তাহলে কেন এই সরকারের ওপর আস্থা থাকবে? বিশ্বাস হারালে বিশ্বাস ফেরত পাওয়া যায় না।’

টিডিপি’র সাংসদদের বক্তব্যের সময় হট্টগোল শুরু করে দেন টিআরএস সাংসদরা। কারণ অন্ধ্রপ্রদেশ ভাগ হওয়ায় ক্ষতি হয়েছে— এমনটা মানতে নারাজ তেলঙ্গানা রাষ্ট্রীয় সমিতির সাংসদরা।

বিজেপি নেতৃত্বাধীন জোট এনডিএ’র সাংসদ মোট ৩১২ জন। ১১টি আসন খালি থাকায় এখন লোকসভার মোট সদস্য ৫৩৩ জন। ফলে সরকার টিকিয়ে রাখতে গেলে বিজেপি জোটের প্রয়োজন হবে ২৬৭ জন সাংসদের সমর্থন। আর এই সমর্থন অর্জনের ব্যাপারে বেশ আত্মবিশ্বাসী বিজেপি জোট।

এর আগে সকালে এই অনাস্থা ভোট নিয়ে টুইট করেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। টুইটে তিনি সব পক্ষের কাছে অনাস্থা প্রস্তাবের ওপর শান্তিপূর্ণ ও গঠনমূলক  আলোচনার অনুরোধ জানান।

টুইটে মোদি লেখেন, ‘দেশের গণতন্ত্রের জন্য আজকের দিনটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আমি নিশ্চিত সাংসদরা এই দিনটার গুরত্ব বুঝতে পেরে শন্তিপূর্ণ ও গঠনমূলক আলোচনা করবেন। দেশের মানুষ এবং সংবিধান প্রণেতাদের প্রতি এটা আমাদের কর্তব্য।’

Editor in Chief : Sayed Shakil
Office: Evan plaza, sador model thana road, cox’sbazar-4700. Email: dailycoxsbazar@gmail.com / phone: 01819099070
অনুমতি ছাড়া অথবা তথ্যসূত্র উল্লেখ না করে এই ওয়েব সাইট-এর কোন অংশ, লেখা বা ছবি নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনী