সংবাদ শিরোনাম

বিদেশি পর্যটক হারাচ্ছে কক্সবাজার

কক্সবাজার ‘সি বিচ’ পরিচিত বিশ্বজুড়ে। সুর্যোদয়-সুর্যাস্তসহ প্রাকৃতিক সুন্দর্য দেখা ও বিনোদনের লোভে বিদেশী পর্যটকরা আসেন কক্সবাজারে। তবে নানা কারণে বিদেশি পর্যটকরা মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন। পর্যটন শিল্প বিকাশে সরকারের হাতে নেয়া মেগা প্রজেক্টগুলো দ্রুত বাস্তবায়নের দাবি করছেন সংশ্লিষ্টরা।

সীগার্ল হোটেলের সহকারী ম্যানেজার নুর-এ-আলম মিথুন জানান, ‘বিদেশি পর্যটকরা সূর্যস্নানে অভ্যস্ত। কিন্তু এখানে সূর্যস্নানের পরিবেশ নেই। ফলে তারা মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে। সমুদ্র সৈকতকে পরিচ্ছন্নতার অভাব ও হকার পছন্দ করেনা বিদেশিরা। তাদের পদচারণা বাড়াতে সৈকতকে পরিচ্ছন্ন ও হকার মুক্ত করা জরুরী। পাশাপাশি সরকারের পরিকল্পনাধীন এক্সক্লুসিভ জোনের প্রকল্পটি দ্রুত বাস্তবায়ন করা উচিত’।

মেরিন ড্রাইভ হোটেল রিসোর্ট মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মুকিম খান জানান, ‘বিদেশি পর্যটকদের আকৃষ্ট করতে অনলাইল, টেলিভিশন, ফেসবুক ও টুইটারসহ বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে প্রচার-প্রচারণা চালাতে হবে। বিশ্বের অন্য সৈকতের মতো কক্সবাজারের সৌন্দর্য্য তুলে ধরতে হবে। যোগাযোগের সুব্যবস্থাসহ চাহিদা মাফিক বিনোদনের ব্যবস্থা করতে হবে’।

কক্সবাজার হোটেল-মোটেল মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবুল কাসেম সিকদার জানান, ‘বিদেশি পর্যটকরা কক্সবাজার বেড়াতে আসলে সঠিক গাইড পান না। বিদেশিদের পরিবেশ অনুযায়ী বিনোদন ব্যবস্থা জরুরী। যা এখনো গড়ে উঠেনি।

কক্সবাজারের অ্যাডিশনাল ডিসি (পর্যটন-প্রটোকল) এসএম সরওয়ার কামাল জানান, ‘বিদেশি পর্যটকদের আগমন বাড়াতে সরকার ব্যাপক পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। টেকনাফের সাবরাং এক্সক্লুসিভ পর্যটন, নাফ ট্যুরিজম, ১২০ কিলোমিটার সমুদ্র সৈকতের মেরিন ড্রাইভ রোডকে ঘিরে ১০টি আলাদা জোনের কাজ হাতে নেয়া হয়েছে। এরমধ্যে এসব প্রকল্পের কাজ শুরু হবে। এতে বিদেশি পর্যটকদের আগমন বাড়বে’।

ডিসি কামাল হোসেন জানান, ‘কক্সবাজার মেরিন ড্রাইভ সড়কের নির্মাণ দ্রুত সম্পন্ন করা হয়েছে। কক্সবাজার আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরের কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। রেললাইন প্রকল্পের কাজও শুরু হয়েছে।’

Editor in Chief : Sayed Shakil
Office: Evan plaza, sador model thana road, cox’sbazar-4700. Email: dailycoxsbazar@gmail.com / phone: 01819099070
অনুমতি ছাড়া অথবা তথ্যসূত্র উল্লেখ না করে এই ওয়েব সাইট-এর কোন অংশ, লেখা বা ছবি নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনী