সংবাদ শিরোনাম

নতুন সরকারের যাত্রা শুরু

৩০ ডিসেম্বর’১৮ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়ে বিজয়ী হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার ২ জানুয়ারী’১৯ তারিখে আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্যরা জাতীয় সংসদের সদস্য হিসেবে শপথ গ্রহণ করেন।

আজ ৭ জানুয়ারী(সোমবার) মন্ত্রিসভার দায়িত্ব নিচ্ছেন।

আজ সোমবার বিকাল সাড়ে ৩টায় বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ নতুন মন্ত্রিপরিষদ সদস্যদের শপথবাক্য পাঠ করান।

নিয়ম অনুযায়ি প্রথমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শপথগ্রহণ করেন। এরপর শপথ বাক্য পাঠ করেন মন্ত্রী পরিষদের পূর্ণমন্ত্রীগণ। এরপর শপথ গ্রহণ করেন প্রতিমন্ত্রী এবং সর্বশেষ শপথ গ্রহণ করেন উপমন্ত্রী বর্গ।

এর মাধ্যমেই তৃতীয় মেয়াদে আওয়ামী লীগের যাত্রাপথ শুরু হলো। আওয়ামী লীগের বিপুল ম্যান্ডেট নিয়ে যে বিজয় হয়েছে। সেখানে একটি তারুন্যে উদ্ভাসিত মন্ত্রিসভা দিয়ে আওয়ামী লীগ যাত্রা শুরু করছে। দলের শীর্ষনেতাদের সাইড লাইনে বসিয়ে রেখে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অর্ধেকের বেশি নতুন আনকোরা মন্ত্রী নিয়ে নিজেকে একটি চ্যালেঞ্জের মুখে দাড় করিয়েছেন। তবে আশার দিক হলো এই মন্ত্রিসভায় যারা সদস্য হয়েছেন। তাদের অধিকাংশই ক্লিন ইমেজের ব্যাক্তি হিসেবে সমাজে এবং রাজনীতিতে পরিচিত। পাশাপাশি বিগত মন্ত্রিসভায় দলের মধ্যে যারা বিতর্কিত ছিলেন তাদের তিনি মন্ত্রিসভা থেকে বাদ দিয়েছেন।

একটা দেশে একটা রাজনৈতিক দল যখন ক্ষমতায় আসে তখন সেই দলটির সাফল্য ব্যার্থতা নির্ভর করে সেই দলটির সরকার কিভাবে পরিচালিত হয়। সরকার পরিচালিত হয়, সরকারের যে মন্ত্রী থাকে তাদের কার্যক্রমে। তাদের সিদ্ধান্ত গ্রহনের প্রত্যুৎপন্নমতিতা এবং তাদের নীতি নিষ্ঠা এবং তাদের স্বচ্ছতা জবাবদিহীতার উপর ভিত্তি করে। কাজেই এই সরকার কেমন করবে তা নির্ভর করে নতুন মন্ত্রিসভার উপর। আজ বিকেল সাড়ে তিনটায় যে মন্ত্রিসভা শপথ গ্রহণ করবে। সেই মন্ত্রিসভার কাছে মানুষের প্রত্যাশা অনেক। কারণ আওয়ামী লীগ একটি বড় বিজয় পেয়ে ক্ষমতায় নতুন করে বসতে যাচ্ছে।

আওয়ামী লীগ গত দশ বছরে অনেক সমলোচনা এবং কিছু নেতিবাচক দিক থাকা সত্বেও আওয়ামী লীগ দেশে একটি বিপুল উন্নয়নের কর্মযজ্ঞ করেছে।  এই উন্নয়নের ধারা এগিয়ে নিয়ে যাওয়া আওয়ামী লীগের  জন্য একটা বড় চ্যালেঞ্জ। পাশাপাশি গত ১০ বছরে আওয়ামী লীগের যে সমলোচনা হয়েছে, সুশাসনের অভাব, জবাবদিহীতার অভাব, মানবাধিকারের ঘাটতি এবং দুর্নীতি। বিশেষ করে ব্যাংকিং সেক্টরে যে দুর্নীতি এবং অনিয়ম হয়েছে, সেগুলো নিয়ে আওয়ামী লীগের যে ঘাটতিগুলো ছিল। সেই ঘাটতি পুষিয়ে নেয়া হবে নতুন মন্ত্রিসভার চ্যালেঞ্জ। এই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে নতুন মন্ত্রিসভা কি করে তার পরীক্ষা শুরু হবে আজ।

তবে আওয়ামী লীগ সরকার গত দশ বছরে যতটা না দলীয় পারফরমেন্সের উপরে নির্ভরশীল হয়েছে। তার চেয়ে বেশি হয়েছে শেখ হাসিনার ব্যক্তিগত রাজনৈতিক দূরদর্শিতা, প্রত্যুৎপন্নমতিতা, কারিশমা, সততা এবং নিষ্ঠা দিয়েই আওয়ামী লীগ এগিয়ে গেছে। এবারও তিনি ব্যাতিক্রমী মন্ত্রিসভা করে আরেকটি চমক দিয়েছেন।  তিনি দেশকে কোনপথে এগিয়ে নিয়ে যাবে। নতুন সরকারের নেতৃত্বে তিনি কি ব্যতিক্রম দেখাবেন। সেটার উপর নির্ভর করছে সরকারের সাফল্য এবং দেশের অগ্রগতি।

এবারের নতুন মন্ত্রিসভা হচ্ছে ৪৭ সদস্য বিশিষ্ট। এর মধ্যে মন্ত্রী ২৫ জন, প্রতিমন্ত্রী ১৯ জন এবং উপমন্ত্রী হিসেবে থাকছেন ৩ জন। গতকাল রোববার বিকেলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম নতুন মন্ত্রিসভার সদস্যদের নাম ঘোষণা করেন।

Editor in Chief : Sayed Shakil
Office: Evan plaza, sador model thana road, cox’sbazar-4700. Email: dailycoxsbazar@gmail.com / phone: 01819099070
অনুমতি ছাড়া অথবা তথ্যসূত্র উল্লেখ না করে এই ওয়েব সাইট-এর কোন অংশ, লেখা বা ছবি নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনী