সংবাদ শিরোনাম

মাশরাফীর রংপুরকে উড়িয়ে ফাইনালে সাকিবের ঢাকা

ক্রীড়াঙ্গন ডেস্ক :রংপুর রাইডার্সকে কম রানে বেধে কাজটা সহজ বানিয়ে রেখেছিলেন বোলাররা। আন্ড্রে রাসেলের ব্যাটিং তাণ্ডবে ২০ বল হাতে রেখেই বাকি কাজ সারল ঢাকা ডায়নামাইটস। মেতেছে বিপিএলের ফাইনাল নিশ্চিত করার আনন্দে!

মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বুধবার মহাগুরুত্বপূর্ণ দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে মাশরাফী বিন মোর্ত্তজার দলকে ৫ উইকেটে হারায় সাকিব আল হাসানের দল।

রংপুরের ১৪২ রানের জবাবে ১৬.৪ ওভারে ৫ উইকেটে ১৪৭ রান করে ঢাকা।

দলটির জয়ে গুরুত্বপূর্ণ অবদান সাত নম্বরে ব্যাট করতে নামা আন্ড্রে রাসেলের। ৯৭ রানে পাঁচ উইকেট হারিয়ে ফেললেও তার ব্যাটিং তাণ্ডবে দাপুটে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে গত আসরের রানার্স-আপরা।

আশানুরূপ ছিল না ঢাকার শুরু। দলীয় ৪ রানেই ওপেনার উপুল থারাঙ্গাকে হারায় তারা। দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে শুরুর ধাক্কা কাটিয়ে তোলেন সুনীল নারিন ও রনি তালুকদার জুটি। ৩৭ রানের জুটিতে থামান নাজমুল ইসলাম অপু। বলে রাইলি রশুকে ক্যাচ দিয়ে ফিরেন ৮ বলে তিন চারে ১৪ রান করা নারিন।

অধিনায়ক সাকিবকে নিয়ে দলকে এগিয়ে নিচ্ছিলেন রনি। ৩৪ রানের এই জুটির লাগাম টানেন বেনি হাওয়েল। দলীয় ৭৫ রানে তার বলে বোল্ড হন ২০ বলে ২৩ করা সাকিব।

উইকেটে এসেই ঝড় তোলার আভাস দিলেও কাইরন পোলার্ডকে সে পথে হাঁটতে দেননি মাশরাফী। দলীয় ৯১ রানে তার বলে কট বিহাইন্ড হন আট বলে ১৪ করা ক্যারবীয় এই ব্যাটার। দলীয় স্কোরে ছয় রান জমা পড়তেই উইকেট ছাড়া হন দীর্ঘক্ষণ উইকেট আগলে রাখা রনি। রানআউট হওয়ার আগে ৩৪ বলে চার ৩৫ রান করেন দেশীয় এই ব্যাটসম্যান।

বাকি কাজ সারার দায়িত্ব যেন একাই নেন রাসেল। নুরুল হাসান সোহানকে রাখলেন কেবল সঙ্গী করে। চার নয়, শুধু ছক্কা হাঁকালেন ওয়েস্ট ইন্ডিজ ব্যাটম্যান রাসেল। ১৯ বলে পাঁচ ছক্কায় ৪০ রান করে দলকে পৌঁছে দেন জয়ের বন্দরে। ১৭ বলে ৯ রান নিয়ে অপরাজিত থাকেন সোহান।

রংপুরের বোলারদের মধ্যে ৩২ রানে দুটি উইকেট নেন মাশরাফী। একটি করে উইকেট অপু ও হাওয়েলের।

এর আগে ঢাকার বোলারদের সামনে নির্ধারিত ওভারের দুই বল বাকি থাকতেই ১৪২ রানে গুঁড়িয়ে যায় টসে হারা রংপুর।

দলকে ভালো একটি শুরু এনে দিয়েছিলেন ক্রিস গেইল ও নাদিফ চৌধুরী। ২৪ বলে ৪২ রান! ক্রমেই ভয়াবহ হয়ে ওঠা ওপেনিং জুটিকে থামান ঢাকার অফস্পিনার শুভাগত হোম। তার বলে পোলার্ডের হাতে ধরা পড়ার আগে ১২ বলে দুই চার ও তিন ছক্কায় ২৭ রান করেন নাদিফ।

থিতু হয়ে বড় ইনিংসে স্বপ্ন দেখাচ্ছিলেন গেইল। তা হতে দিলেন না রুবেল হোসেন। তার করা পঞ্চম ওভারের প্রথম বলেই কটবিহাইন্ড হন ১৩ বলে ১৫ রান করা ক্যারিবীয় ব্যাটিং দানব। পরের বলেই আউট রাইলি রুশো।

মিঠুনের দৃঢ়তায়ই ফাইটিং সংগ্রহের ভিত পায় রংপুর। চতুর্থ উইকেটে রবি বোপারাকে নিয়ে গড়ে তুলেন কার্যকরী এক জুটি। ৬৪ রানের জুটিকে থামান কাজি অনিক। অফস্টাম্পের বাইরের বলটি খেলতে গিয়ে কটবিহাইন্ড হন ২৭ বলে দুই চার ও দুই ছক্কায় ৩৮ রান করা মিঠুন।

আবারো ছন্দপতন রংপুরের। দুই অঙ্ক স্পর্শ করার আগেই সাকিব আল হাসানের শিকার হন বেনি হাওয়েল; অনিকের শিকার হন অধিনায়ক মাশরাফী।

উইকেটের একপ্রান্ত দৃঢ়তার সঙ্গে আগলে রাখলেও সঙ্গীর অভাবে ভুগেছেন সঙ্গী পাননি বোপারা। অসাধারণ কিছু করতে না পারলেও ইংলিশ এই ব্যাটসম্যানের জন্যই শেষ ওভার পর্যন্ত যেতে পেরেছে রংপুর।

ইনিংসের শেষ ওভারের চতুর্থ বলে বোপারা রুবেলের শিকার হওয়ার আগে করেন ৪৯ রান। তার ৪৩ বলের ইনিংসটিতে রয়েছে ছয় চার ও এক ছক্কা।

ঢাকার বোলারদের মধ্যে দারুণ নৈপুণ্য দেখিয়েছেন পেসার রুবেল। ৩.৪ ওভারে ২৩ রানে নেন চার উইকেট। দুইটি করে উইকেট নিয়েছেন রাসেল ও কাজি অনিক।

দারুণ বোলিংয়ে চার উইকেট নিয়ে ম্যাচ সেরার পুরস্কার নিজের করে নিয়েছেন ঢাকার পেসার রুবেল হোসেন।

শুক্রবার মিরপুরে ফাইনালে ঢাকার প্রতিপক্ষ সাবেক চ্যাম্পিয়ন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স।

Editor in Chief : Sayed Shakil
Office: Evan plaza, sador model thana road, cox’sbazar-4700. Email: dailycoxsbazar@gmail.com / phone: 01819099070
অনুমতি ছাড়া অথবা তথ্যসূত্র উল্লেখ না করে এই ওয়েব সাইট-এর কোন অংশ, লেখা বা ছবি নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনী