সংবাদ শিরোনাম

আত্মবিশ্বাসী মেয়েরা নেপাল পৌঁছেছে

নারী ফুটবলারদের কাছে আফসোসের এক নাম সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ। অনূর্ধ্ব-১৫ ও ১৮ সাফের দুটি টুর্নামেন্টেই চ্যাম্পিয়ন হওয়ার অভিজ্ঞতা থাকলেও সিনিয়র সাফে গিয়ে আর কুলিয়ে উঠতে পারে না বাংলাদেশ। তবে এবার সেই সম্ভাবনা উঁকি দিচ্ছে। আগামীকাল সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ শুরু হবে নেপালের বিরাটনগরে। অধরা ট্রফি ছোঁয়ার মিশনে গতকাল নেপাল পৌঁছেছে বাংলাদেশ নারী ফুটবল দল।
সাফের এই টুর্নামেন্ট ঘিরে বাংলাদেশের প্রস্তুতি শুরু হয়েছে সেই ২০১৭ সালের ডিসেম্বর থেকে। বাংলাদেশ দলের সবচেয়ে বড় সুবিধা বয়সভিত্তিক টুর্নামেন্টে নিয়মিত অংশ নেয়া মেয়েদের বেশির ভাগই খেলবে জাতীয় দলে। ২০১৬ সালের ডিসেম্বরে ভারতের শিলিগুড়িতে সবশেষ সাফে রানার্সআপ হয়েছিল বাংলাদেশ। সেবার দুর্দান্ত খেলে ফাইনালে হেরেছিল ভারতের কাছে।

এখন পর্যন্ত এটাই বাংলাদেশের সেরা সাফল্য। ২০ সদস্যের ওই দলের প্রায় সকলেই আছেন এবারের দলে।  অধিনায়ক সাবিনা বাংলাদেশের হয়ে খেলছেন সবক’টি সাফেই। টুর্নামেন্টে বাংলাদেশের জন্য কঠিন প্রতিপক্ষ হতে পারে ভারত ও নেপাল। সাফের আগের চার আসরেই চ্যাম্পিয়ন ভারত। বয়স ও অভিজ্ঞতায় বাংলাদেশের চেয়ে অনেক এগিয়ে ভারতের মেয়েরা। নেপালের সঙ্গে বাংলাদেশ সর্বশেষ সাফে খেলেছিল ২০১৪ সালে। সেবার সেমিফাইনালে হেরেছিল বাংলাদেশ। তবে এবারের দলটা অনেক পরিণত। আশাবাদী বাংলাদেশের কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন ফাইনালে খেলার স্বপ্ন নিয়েই নেপাল যাচ্ছেন। দেশ ত্যাগের আগে সেই কথাটাই ঘুরে ফিরে উঠে এলো কোচের মুখে, ‘এই মেয়েরা প্রতিদিন তিন বেলা কঠোর অনুশীলন করছে। অনেকগুলো আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট খেলছে। আশা করি, গ্রুপ পর্বে চ্যাম্পিয়ন হয়ে আমরা সেমিফাইনালে খেলবো। অবশ্যই গতবারের মতো ফাইনালে খেলতে চাই।’
আশার কথা শুনিয়েছেন অধিনায়ক সাবিনা খাতুনও, ‘আমি যেহেতু ৮-১০ বছর ধরে খেলছি, এটা দলের জন্য বাড়তি সুবিধা। তাছাড়া আমি ভারতের মহিলা লীগে খেলে এসেছি। সেই অভিজ্ঞতাও কাজে লাগবে টুর্নামেন্টে। আশা করি, এবারের সাফ আমাদের জন্য স্মরণীয় হয়ে থাকবে।’ নেপালের বিরাটনগর শহীদ রঙ্গশালা স্টেডিয়ামে ১২ই মার্চ শুরু হবে টুর্নামেন্ট। যদিও বাংলাদেশের মেয়েদের সাফের অভিযান শুরু হবে আরো পরে। ১৪ই মার্চ গ্রুপ পর্বে বাংলাদেশের প্রথম প্রতিপক্ষ ভুটান। ১৬ই মার্চ খেলবে নেপালের সঙ্গে। সাবিনার কথার সূত্র ধরেই মিডফিল্ডার কৃষ্ণারানী সরকার বলেন, গত সাফে নেপাল ও ভারতের বিপক্ষে খেলার আগে আমরা অনেক ভয়ে ছিলাম। এবার কিন্তু ভয়টা নেই। দেশ ত্যাগের আগে ভয়কে জয় করার কথাই জানালেন স্ট্রাইকার তহুরা খাতুন। তহুরা কৃষ্ণারা যদি ভয়কে জয় করতে পারে, তবে অধরা সাফ শিরোপা আসতে পারে এই নেপাল থেকে। 

Editor in Chief : Sayed Shakil
Office: Evan plaza, sador model thana road, cox’sbazar-4700. Email: dailycoxsbazar@gmail.com / phone: 01819099070
অনুমতি ছাড়া অথবা তথ্যসূত্র উল্লেখ না করে এই ওয়েব সাইট-এর কোন অংশ, লেখা বা ছবি নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনী