সংবাদ শিরোনাম

অবৈধভাবে বালি উত্তোলনে ক্ষতিগ্রস্থ ধান-লবণ চাষীরা

 চকরিয়ার মেধা কচ্চপিয়া’য় স্থানীয় প্রভাবশালী মহল নদী থেকে অবৈধভাবে বালি উত্তোলন করায় মারাত্বকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে প্রায় অর্ধশত স্থানীয় ধান ও লবণ চাষী। প্রভাবশালীদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে না পেরে নীরবেই সহ্য করছে নিজের ক্ষতি। অবৈধভাবে বালি উত্তোলনের ফলে পরিবেশেরও ক্ষতি।

এ অবস্থায় ক্ষতিগ্রস্থ ধান ও লবণ চাষীরা নিজেদের সম্পদ রক্ষার্থে প্রশাসনের সহযোগিতা প্রত্যাশা করছেন ।

ভুক্তভোগীরা জানান, মেঘা কচ্চপিয়ায় বার খাল নামক এলাকায় এক সাথে ৩ টি মেশিন দিয়ে ২৪ ঘন্টা বালি উত্তোলন করা হচ্ছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ক্ষতিগ্রস্থ ধান আর লবণ চাষীরা জানান, এলাকায় প্রভাব দেখিয়ে এই অপকর্ম করছেন ওই এলাকার মৃত আহমদ সোবহানের ছেলে জিল্লু রহমান, জয়নাল হাজীর ছেলে এনামুল হক বাদশা ও ওসমান, মৌলভী আবু তালেব এর ছেলে আতিক উল্লাহ্, মৃত ফজল করিমের ছেলে আবসার, মৃত কালু সওদাগরের ছেলে শফিকুল ইসলাম মানিক, সাহাব উদ্দিনের চেলে কায়েস, মৃত মনিরুজ্জামানের ছেলে ওলি আহম্মেদ ও ওলি আহম্মদের ছেলে রেজাউল করিম সহ একদল প্রভাবশালী লোক। এতে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে ধান ক্ষেত আর প্লাবিত হচ্ছে লবণ মাঠ।

তাদের বিরুদ্ধে কেউ প্রতিবাদ করার সাহস পায় না। যারা প্রতিবাদ করেছে তারা হামলার স্বীকার হয়েছে। এছাড়া রহস্যজনক কারণে দিন দুপুরে তাদের এই অপকর্ম চলতে থাকলেও প্রশাসন নীরব রয়েছে।

এলাকার সচেতন মহল বলছেন, এসব প্রভাবশালীদের কারণে শুধু পরিবেশের ক্ষতি হচ্ছে না ক্ষতি হচ্ছে পুরো এলাকার আইন শৃংখলা। এর ফলে ফসল আর লবণের পাশাপাশি নদীর নব্যতা হারাচ্ছে। এ ব্যাপারে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ জরুরী হয়ে পড়েছে।

উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা নুর উদ্দিন মুহাম্মদ শিবলী নোমান জানান, ওই এলাকায় অবৈধভাবে বালি উত্তোলনের বিষয়টি অবগত। কদিন আগেও অবৈধভাবে বালি উত্তোলনের অপরাধে একজনকে ২ বছরের জেল দেওয়া হয়েছে। এর আগে আরেকজনকে ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এই অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

Editor in Chief : Sayed Shakil
Office: Evan plaza, sador model thana road, cox’sbazar-4700. Email: dailycoxsbazar@gmail.com / phone: 01819099070
অনুমতি ছাড়া অথবা তথ্যসূত্র উল্লেখ না করে এই ওয়েব সাইট-এর কোন অংশ, লেখা বা ছবি নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনী