সংবাদ শিরোনাম

বড় বাজারের একটি উপ-সড়ক ২ বছর ধরে বন্ধ

কক্সবাজার শহরের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এবং ব্যস্ততম এলাকা বড় বাজারের সবকটি রাস্তা দখল করে নিয়েছে ব্যবসায়িরা। এর মধ্যে ডাব বিক্রেতাদের পাশের একটি রাস্তা ২ বছর ধরে বন্ধ করে রেখেছে কতিপয় ব্যবসায়ি। তারা জোরপূর্বক সেই রাস্তা দিয়ে গাড়ী চলাচল করতে দিচ্ছে না। এতে ওইসব রাস্তা দিয়ে সাধারণ যানবাহন দূরের কথা ঠিক মত মানুষ পায়ে হেটেও পার হতে পারে না। দীর্ঘ দিন ধরে কিছু প্রভাবশালী ব্যবসায়িদের এমন আচরণে ক্ষুদ্র ব্যবসায়িরা প্রতিবাদ করলেও তার ধার ধারে না গুটি কয়েক ব্যবসায়িরা। সাধারণ মানুষের দাবী দ্রুত ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান পরিচালনা করে এসব জন গুরুত্বপূর্ণ রাস্তা জনসাধারনের জন্য খুলে দেওয়া জরুরী।
বড় বাজার এলাকার বাসিন্দা ব্যাংক কর্মকর্তা মংহ্রী রাখাইন বলেন, কক্সবাজারের ব্যবসায়িক প্রাণকেন্দ্র বড় বাজারের বেশ কয়েকটি রাস্তা এখন ব্যবসায়িদের সম্পূর্ণ দখলে। বিশেষ করে বড় বাজারের পূর্ব গলি অর্থাৎ কুমুদিনী স্টোর এর গলি ১ বছরের বেশি সময় ধরে সেখানকার কয়েকটি দোকানের ব্যবসয়িরা জোরপূর্বক দখল করে রেখেছে। রাস্তায় তারা দোকানের মালামাল, বিভিন্ন জিনিসের বস্তা, তেল ভর্তি বা খালি ড্রাম ঠেলাগাড়ি রেখে সম্পূর্ণ দখল করে রাখে। এটা শুধু দিনে কিছুক্ষন সময়ের জন্য তা নয় একেবারে ২৪ ঘন্টার জন্য একই দৃশ্য। এর ফলে সেখান থেকে আমরা রিক্সা নিয়ে আসাতো দূরের কথা পায়ে হেঁটেও আসতে পারি না। মাঝে মধ্যে স্থানীয় মানুষজন এবিষয়ে প্রতিবাদ করলে তারা উল্টো ধমক দিয়ে থাকে এতে ঝগড়া বাঁধে।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বড় বাজারের পূর্ব গলি দিয়ে আসার সময় তারানবিয়ারছড়ার এক মহিলাকে রিক্সা থেকে নামিয়ে বাজারে যেতে বাধ্য করছে কুমুদীনি স্টোরের দোকানদারের কর্মচারী। একইভাবে শাহজাহান নামের আরেক ব্যবসায়িও রিক্সা নিয়ে যেতে বাধা দেয়। এসময় নাছিমা খানম নামেরওই মহিলা বলেন, আমি দীর্ঘক্ষন চেস্টা করেও রিক্সা নিয়ে বাজারে যেতে পারছি না। কারণ প্রচন্ড যানযট। তিনি বলেন মুলতঃ দোকানদাররা তাদের দোকানের পণ্য রাস্তার উপর রাখার কারণে এসব রাস্তা দিয়ে গাড়ী চলাচল করতে পারছে না। আর আমরা মহিলা মানুষ বাজার বেশি হলে কিভাবে হাতে নিয়ে যাব সেটা বুঝতে হবে। ঠিকমত লেবারও পাওয়া যায় না যে তাদের ব্যবহার করবো। তাহলে কি এখানে কোন কর্তৃপক্ষ নেই ?
এসময় রাস্তার জায়গা দখল করে ব্যবসা করা বিষয়ে এক দোকান মালিকের কাছে জানতে চাইলে তিনি এবিষয়ে কোন সদোত্তর দিতে রাজি হয়নি। এক পর্যায়ে দোকান মালিক বলেন, শুধু আমি নয় এখানে সবাই দখল করেছে তারা জায়গা ছাড়লে আমিও ছাড়বো। আগে তাদের ছাড়তে বলেন।
এদিকে শহরের পেশকার পাড়া এলাকার বাসিন্দা শওকত আলম বলেন, বাজারের রাস্তাগুলো ব্যবসায়িদের দখলে থাকায় আমাদের মা বোনদের সেখান থেকে হেঁটে বাড়িতে আসতে হয়। বিশেষ করে পূর্ব পাশের গলি দিয়ে কোনভাবে রিক্সাও আসতে পারে না। এনিয়ে কয়েক বার স্থানীয় পৌরসভার কাউন্সিলরকে বলেছিলাম। তিনিও ব্যবসায়িদের রাস্তার জায়গা ছেড়ে দিতে বলেছে। কিন্তু তারা তা কানে তুলেননি। আমার মনে হয় এবিষয় নিয়ে বড় ধরনের কোন ঘটনা হতে পারে। প্রশাসনের উচিত হবে কোন দূর্ঘটনা বা দাঙ্গা-হাঙ্গামা হওয়ার আগে এবিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া দরকার।
এব্যাপারে বড় বাজার দোকান মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক শেখ আহাম্মদ বলেন, পৌরসভা আমাদের অনেক সুযোগ সুবিধা দিয়েছে। রাস্তা ঘাট প্রসস্থ করে দিয়েছে। তারপরও সরকারি রাস্তায় মালামাল রাখা উচিত নয়। আমরা যারা ব্যবসায়ি আছি আমাদের কোনভাবেই সরকারি স্বার্থ বা জনগণের জন্য সমস্যা হয় এমন কাজ করা উচিত নয়।
দোকান মালিক সমিতির সভাপতি মোস্তাক আহাম্মদ বলেন, আমি সমিতির সভায় বার বার এবিষয়ে বারন করেছিলাম যেকোন ধরনের মালামাল রাস্তায় না রাখার জন্য। বিশেষ করে রিক্সা বা টমটম ছোট গাড়ী পশ্চিমের গলি দিয়ে ঢুকবে পূর্বের গলি দিয়ে বের হবে সেটাই নিয়ম ছিল। কিন্তু এখন দেখছি কিছু ব্যবসায়ি সেটা মানছে না। এটা ঠিক না।

Editor- Sayed Mohammad SHAKIL.
Office: Evan plaza, sador model thana road, cox’sbazar-4700. Email: dailycoxsbazar@gmail.com / phone: 01819099070
অনুমতি ছাড়া অথবা তথ্যসূত্র উল্লেখ না করে এই ওয়েব সাইট-এর কোন অংশ, লেখা বা ছবি নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনী